মেনু নির্বাচন করুন

পোরশা মসিজদ

উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন ধর্মীয় ক্বওমী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, যার সম্পূর্ণ নাম –আল-জামিয়া আল-আরাবিয়া দারুল হিদায়াহ, পোরশা, নওগাঁ।

প্রতিষ্ঠা কালঃ  ১৩৫৩ বাং/১৯৪৬ খ্রিঃ

পোরশা মাদ্রাসার ভৌগলিক অবস্থান :- রাজশাহী বিভাগের অন্তগর্ত নওগাঁ জেলার পোরশা থানাধীন পোরশা গ্রামের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত।

প্রতিষ্ঠাতা :- মরহুম আব্দুল হাই শাহ্ চৌধুরী।

প্রথম পরিচালক :- মাওলানা সালেহ আহমাদ সাহেব।

আয়তন :- নয় বিঘা।

ওয়াক্ফ কৃত জমি :- তেরশত বিঘা এর উর্ধ্বে জমি আছে। (নির্দিষ্ট সংখ্যা জানা নেই, তবে এতটুকু জানা আছে যে, বর্তমানে মাদ্রাসার ফান্ডে পনেরশত বিঘার ফসলের টাকা জমা হয়।)

পোরশা মাদ্রাসার প্রথম শিক্ষক :- মাওলানা সাঈদ আহমাদ (রহঃ) নোয়াখালী

প্রথম ছাত্র সমূহ :- আলী আহমাদ শাহ্, নরুল ইসলাম শাহ্, সিরাজ উদ্দীন শাহ্, রেজাউল করীম সাহেব, বদিউল আলম শাহ্ মোজাহারুল শাহ্, মতিউর রহমান শাহ্ প্রমুখ।

দাওরায়ে হাদীসের সূচনা :- ১৩৮০ হিজরী মোতাবেক ১৯৫৯ ইং সালে বৃহত্তর উত্তরবঙ্গে সর্বপ্রথম দাওরায়ে হাদীস এই মাদ্রাসায় চালু করা হয়।

প্রথম শাইখুল হাদীস :- মাওলানা আব্দুল হক্ব ইসলামাবাদী সাহেব (রহঃ)

শিক্ষা বোর্ড গঠন :- শিক্ষা-দীক্ষার মানোন্নয়নে জন্য নওগাঁ ও পার্শ্ববর্তী এলাকার সব কওমী মাদ্রাসা নিয়ে ১৪১৯ হি: মোতাবেক ১৯৯৮ ইং সনে একটি শিক্ষা বোর্ড গঠন করা হয়।
বোর্ডের নাম ইত্তেফাকুল মাদারিস আল আরাবিয়া আল কওমিয়া নওগাঁ বাংলাদেশ। তার প্রধান কার্যালয় পোরশা দারুল হিদায়াহ মাদ্রাসা। বোর্ডের আওতাভুক্ত মাদ্রাসাগুলো কার্যালয় অফিসে এসে শিক্ষার মানোন্নয়ন ও মাদ্রাসার সার্বিক উন্নতি ও শিক্ষক ছাত্রের বিষয়ে সর্বপ্রকার আলোচনা করা হয়। এই বোর্ডের মাধ্যমে মাদ্রাসা গুলি সুষ্ঠভাবে পরিচালনা করা হয়।


জামিয়ার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য – ইলমে দ্বীন পিপাসু ছাত্রদের শিক্ষা দীক্ষার সাথে সাথে বিশুদ্ধ তাওহীদ, সুন্নাতে রাসুল (সাঃ) এর অনুসরণ, আল্লাহর সাথে সম্পর্ক স্থাপন এবং তাবলীগে দ্বীনের সত্যিকার মুবাল্লিগ করে গড়ে তোলা, তৎসহ এলাকার যতাসম্ভব দ্বীনি পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা করা, সর্বোপরি আল্লাহ পাকের সন্তুষ্টি অর্জন করা।

কিভাবে যাওয়া যায়:

সরাইগাছী মোড় থেকে প্রায় ৪ কিমি.। সরাইগাছী মোড় হতে  ভ্যান, মোটরসাইকেল, রিক্সাযোগে যাওয়া যায় (সম্পূর্ণ পাকা রাস্তা)। অথবা  সরাইগাছী মোড় হতে সূত্রইল মোড় পর্যন্ত বাসযোগে এবং সূত্রইল হতে পোরশা মাদ্রাসা ভ্যান, মোটরসাইকেল, রিক্সাযোগে, পদব্রজে যাওয়া যায়।


Share with :

Facebook Twitter